October 16, 2021

University Live 24

The Mirror of University Life

‘কিশোর অপরাধ শুধুমাত্র সাজার মাধ্যমে দমন সম্ভব নয়’

দেশের মানুষকে আইন বিষয়ে সচেতন করতে ও আইনি সহায়তা প্রদান করতে ‘আইনি তথ্য ও সহায়তা কেন্দ্র’ এর আয়োজনে লাইভ অনুষ্ঠান ‘অইনি কথন’ এর প্রথম পর্ব গত ১০ শে জুন রাত ৮ :৩০ মিনিটে অনুষ্ঠিত হয়। লাইভ প্রগামটির আলোচ্য বিষয় ছিল “কিশোরদের অপরাধ প্রবণতা: সামাজিক প্রেক্ষাপট ও আইনি পরিধি”।

আইনি তথ্য ও সহায়তা কেন্দ্র এর কর্নধর মোঃ শামসুদ্দোহার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে যুক্ত ছিলেন সুপ্রিমকোর্টের বিজ্ঞ আইনজীবী ব্যারিস্টার মুশফিকুল হুদা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালযইয়ের আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হুমায়ূন কবির। আলোচক ব্যারিস্টার মুশফিকুল হুদা মনে করেন কিশোর অপরাধ দমনে আইন প্রয়োগ নয় বরং তাদেরকে সমাজের মূলধারায় আনতে হলে আমাদের পলিসিগত যে ত্রুটি আছে তা নির্মূল করতে হবে এবং তাদেরকে বিচারের আওতায় না এনে অন্য কি উপায়ে সংশোধন করা যায় তা নিয়ে ভাবতে হবে। যখন কোন কিশোরকে একবার বিচারের আওতায় আনা হবে তখন ওই বিচার সম্পর্কে তার ভয় ভেঙে যাবে, এতে করে তার মধ্যে অপরাধী হওয়ার প্রবণতা আরো বৃদ্ধি পাবে। পারিবারিক কাউন্সিলিং, সামাজিক কাউন্সিলিং আরো বৃদ্ধি করতে হবে। শিশু আইন ২০১৩ যে সকল প্রতিষ্ঠান কথা উল্লেখ আছে সেসকল প্রতিষ্ঠানকে আরও কার্যকরী ভূমিকা পালন করতে হবে এবং ওই সকল প্রতিষ্ঠান যেন কিশোর অপরাধ নিয়ে যারা কাজ করে এবং এর সাথে সম্পর্কিত অভিজ্ঞ ব্যক্তি বর্গ যেন সেখানে ভুমিকা রাখতে পারে সেই সুযোগ রাখতে হবে।

আলোচক হুমায়ুন কবির শিশু অপরাধের প্রধান কারণ হিসেবে ধর্মীয় মূল্যবোধের অভাব, নগরায়ন্‌, সামাজিক অনুশাসনের অভাব, পারিবারিক অনুশাসনের অভাব্‌,তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার ও পারিবারিক উদাসীনতা কে দায়ী করেন। তিনি মনে করেন কিশোর অপরাধ দমনে সবার আগে পরিবারকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি নীতিনির্ধারকদেরকে আহ্বান জানান কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্র আরো বৃদ্ধি করতে এবং এর সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করতে। কিশোরদের জন্য যথাযথ বিনোদনের ব্যবস্থা করতে। তিনি মনে করেন কিশোর অপরাধ শুধুমাত্র সাজার মাধ্যমে দমন সম্ভব নয় তাদেরকে যথাযথ পরিচর্যার মাধ্যমে সমাজের মূলধারায় নিয়ে আসতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *